১৪ই জুলাই, ২০২০ ইং , ৩০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ




৮ এপ্রিল, ২০২০ , ০৭:২৩ আপডেট: ৮ এপ্রিল, ২০২০ ,০৭:২৩

আগামী কয়েক সপ্তাহে সৌদি আরবে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী ড. তৌফিক বিন ফাওজান আল রাবিয়া।

সম্প্রতি দেশি বিদেশি চারটি পৃথক সংস্থার এক গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে বলে জানান তিনি। খবর মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম সিয়াসাত ডেইলির।

মঙ্গলবার ড. তৌফিক বলেন, বৈশ্বিক মহামারী করোনার ইতিমধ্যে ২ হাজার ৭০ ছাড়িয়েছে। আগামী কয়েক সপ্তাহে এ সংখ্যা সর্বনিম্ন ১০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ২ লাখ ছাড়াতে পারে।

তিনি আরও বলেন, সৌদি সরকার অনেক আগে থেকেই করোনাভাইরাসের বিস্তাররোধে সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নিয়েছে। সরকারের নির্দেশনা অক্ষরে অক্ষরে পালন করতে সৌদি নাগরিক ও প্রবাসীদের আহ্বান জানাই।

এদিকে সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, করোনার বিস্তার ঠেকাতে সরকারি ৫০ শতাংশ লোক সরকারি নির্দেশনা মেনে চলছেন । তবে এ হার যত দ্রুত সম্ভব ১০০ শতাংশে নিয়ে যেতে হবে।

উল্লেখ্য, করোনা রোগী শনাক্তের পর থেকেই স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়সহ সরকারি, বেসরকারি কর্মক্ষেত্রে উপস্থিতি স্থগিতকরণশ স্থল, নৌ ও আকাশ পথসহ সীমান্ত বন্ধ করা দেয় সৌদি সরকার । পবিত্র দুই মসজিদসহ সব মসজিদ, জনসমাগম, শপিংমল, বিয়ের অনুষ্ঠান, গণপরিবহন, ট্রেন, ট্যাক্সি এবং এক শহর থেকে অন্য শহরে যাতায়াত বন্ধ করা হয় ।

এক বিজ্ঞপ্তিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সৌদির যে সব অঞ্চলে সন্ধ্যা ৭টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত কারফিউ ছিল, সেসব অঞ্চলে ৮ এপ্রিল বিকাল ৩টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত কারফিউ জারি করা হয়েছে। অর্থাৎ ঐ সকল অঞ্চলে চার ঘন্টা কারফিউ বৃদ্ধি করা হয়েছে । আর যেখানে ২৪ ঘণ্টা কারফিউ ছিল সেখানে ২৪ ঘন্টাই বলবৎ থাকবে।

তবে মাজরা (শষ্য), মাছ, ছাগল পালন-উৎপাদন ও পোল্ট্রি ফার্মের সঙ্গে যুক্ত সংশ্লিষ্টদের জন্য কারফিউ শিথিল থাকবে । এই খাতের সঙ্গে সম্পৃক্ত মালিকরা প্রতি সপ্তাহে একবার সৌদি কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে কারফিউ আওতামুক্তপত্র নবায়ন করে নিতে হবে।

এক ভাবে ইতিপূর্বে যাদেরকে কাজের স্বার্থে কারফিউর আওতার বাইরে রাখা হয়েছিল তারা এসব এলাকায় অত্যন্ত নিয়ন্ত্রিতভাবে চলাফেরা করতে পারবে। জনস্বার্থ বিবেচনায় এই নির্দেশনা জারি করা হয়েছে বলে জানানো হয়।

মন্ত্রণালয় আরও জানায়, দেশটির সব প্রদেশে রেস্তোরাঁ থেকে হোম ডেলিভারি অর্ডারের সময়সীমা রাত দশটা পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে।

এছাড়া গ্যাস স্টেশন, সার্ভিস এন্ড মেইন্টেনেন্স প্রতিষ্ঠান, প্লাম্বিং- ইলেক্ট্রিক- এসি টেকনিশিয়ানের কাজ, পানি পৌছানোর কাজে নিয়োজিত কোম্পানি এবং ফিলিং স্টেশনে অবস্থিত যানবাহন মেন্টেইনেন্সের দোকানসমূহ খোলা থাকবে।

সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেয়া তথ্যানুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় সৌদি আরবে নতুন করে আরও ২৭২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার ৭ শত ৯৫ জন। মারা গেছেন ৪১ জন। সুস্থ হয়েছেন ৬ শত ১৫ জন ।

আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডওমিটারও একই তথ্য দিয়েছে।

এখন পর্যন্ত, শতকরা হিসাবে করোনায় মৃতদের মধ্যে অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশি প্রবাসীদের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি ।